এলজিইডি প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে প্রকল্পের টাকা আত্বসাতের অভিযোগ, তিন কার্যদিবসে উত্তর দেওয়ার নির্দেশ

কর্তৃক ferozsatkhira
০ মন্তব্য 8 ভিউজ

সাতক্ষীরা ট্রিবিউন :সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ জাকির হোসেন কর্তৃক প্রকল্পের ২০২১-২২ অর্থ বছরের কাজ না করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে উপজেলা চেয়াম্যান কর্তৃক শোকজ প্রদান করা হয়েছে । লিখিত অভিযোগের আলোকে জানা যায়,চলতি বছরের সাতক্ষীরা কালিগঞ্জের তারালি ভাড়া শিমলা ও মৌতলা ইউনিয়নে এডিপি অর্থবছরের প্রকল্পের কাজ না করে ভূয়া বিল ভাউচারের মধ্যমে উত্তোলন করে টাকা আত্বসাত করেছেন উপজেলা এলজিইডি অফিসার জাকির হোসেন। বিষয়টি পরবর্তিতে কালিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান খোজ খবর নিয়ে জানতে পারেন উক্ত প্রকল্পের আংশিক কাজ করে পুরা টাকা লুুটপাট করেন । শুধু তাই নয় আর এম পি প্রকল্পের তিন জন শ্রমিক ও এলসেস প্রকল্পের ১৩ জন শ্রমিকের মধ্যে ৬ জন কাজ না করে দৈনিক মুজুরি নেয় । এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান স্মারক নং উপঃ পরিঃ কালিঃ সাত/২০২২-৬৯৮ গত ৬ ডিসেম্বর দূর্নীতিবাজ এলজিইডি অফিসার জাকির হোসেনকে উপঃ কালিঃ সাতঃ ২০২২-৯৬৪ নং স্বারকে তিন কার্য দিবসের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত না করে বিলের টাকা উত্তোলনের কারণ লিখিতভাবে কারণ দর্শানো নোটিশ করেন কালিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদ মেহেদী। একই সাথে বিষয়টি স্থানীয় সরকার সাতক্ষীরা নির্বাহী প্রকৌশলীর অবগত করেন । এ প্রতিবেদককে কালিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদ মেহেদী বলেন, উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী জাকির হোসেন তিনটি ইউনিয়নের প্রকল্পের কাজ না করে ১২ লক্ষ টাকার মত আত্বসাত করেন । যার কারনে ৩ কার্য দিবসের মধ্যে ব্যাখ্যা চাওয়া হলেও ব্যাখ্যা না দিয়ে বহাল তবিয়তে আছে’ ‘‘আমি ও দেখবো ওর খুটির জোর কোথায়। এ বিষয়ে সাতক্ষীরা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সুজায়েত হোসেন এ প্রতিবেদককে বলেন বিষটা আপনি লেখালোখ করেন না, বিষয়টি আমি দেখে এখনি ব্যাবস্থা নেব। এ প্রসঙ্গে এলজিইডি উপজেলা প্রকৌশলী জাকির হোসেন বলেন আমি এখন কালিগঞ্জে দায়িত্বে নেই ,আমি এখন শ্যামনগর উপজেলায় আছি তাছাড়া ঘটনা সত্য না, সত্য হলে আপনি যা খুশি তাই লেখেন।

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন