তালা সরকারী গার্লস স্কুলের শিক্ষকের বিরুদ্ধে নম্বর জালিয়াতির অভিযোগ,, শিক্ষার্থীর আর্তনাদ”

কর্তৃক ferozsatkhira
০ মন্তব্য 232 ভিউজ

মোঃ আকবর হোসেন, তালাঃ
সাতক্ষীরা তালায় শহীদ আলী আহম্মদ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, মুমতাহিনা মুক্তির বিরুদ্ধে পরীক্ষার নম্বর জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে ৷
ঘটনার বিবরনে লিখিত অভিযোগকারী মোঃ  রেজাউল ইসলাম রেজা জানান,,আমার কণ্যা তালা শহীদ আলী আহম্মদ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। গত অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার নম্বর জালিয়াতি মাধ্যমে আমার মেয়েকে মেধা তালিকা  থেকে নিচে নামিয়ে, আই সি টি খাতার নম্বর জালিয়াতি করে, ৩৬ নম্বর পাওয়া অন্য একটা মেয়েকে নাম্বার মুছে ৪০ নম্বর দেওয়া হয়েছে। আর এই জগন্য কাজটি করেছেন ঐ স্কুলের শিক্ষক মুমতাহিনা মুক্তি ৷ তিনি আরও জানান, আমার কণ্যা রেজাল্ট শুনে মানুষিক ভাবে ভেংগে পড়েছে, তার মুখের দিকে তাকাতে পারছি না, আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই ৷ উল্লেখ্য যে, নাম্বার বেশী করা ছাত্রী শিক্ষিকা মুমতাহিনা মুক্তির কোচিং এর শিক্ষার্থী ৷

এ বিষয়ে আইসিটি বিষয়ের শিক্ষক মোঃ আসলাম আল মেহেদী বলেন, আমি খাতা মূল্যায়ন করে একজন শিক্ষার্থীকে ৩৬ নম্বর দিয়েছি। কিন্তু ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক কিভাবে আমার মূল্যায়নকৃত নম্বর কেটে নম্বর বাড়িয়ে দিলো তা আমার বোধগম্য হয় না। এতে আমি অপমানিত বোধ করছি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মুমতাহিনা মুক্তি জানান প্রধান শিক্ষক আমাকে নাম্বার যোগ করতে বলেছেন,আমি তার অনুমতিক্রমে কাজটি করেথি, তাহাছাড়া আইসিটির শিক্ষক আসলাম সাহেব, শিক্ষার্থীর খাতায় লেখা কাটা কাটির জন্য নম্বর কম দিয়েছিলেন, তাকে বলার পরেও তিনি নম্বর দিতে অস্বীকার করলে, প্রধান শিক্ষক নব কুমার শিক্ষক কে খাতা পূর্ণ মূল্যায়ন করতে দেন, তিনি পূর্ণ মূল্যায়ন করে প্রাপ্য নাম্বার দিয়েছিলেন,

অন্য শিক্ষক এর মূল্যায়নকৃত খাতা আপনি বেশী নাম্বার কেন দিলেন, এমন প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষক নব কুমার বলেন, প্রধান শিক্ষক এর অনুমতিক্রমে আমি পূর্ণ মূল্যায়ন করে প্রাপ্য নাম্বার দিয়েছি ৷

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অলোক কুমার তরফদার বলেন, আমি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি দেখবো। তারপর ব্যবস্থা নিবো।

এ বিষয়ে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস জানান, আমি অভিযোগ পেয়েছি। যেহেতু সরকারি প্রতিষ্ঠান সেহেতু সরকারি নিয়ম অনুযায়ী বিষয়টি দেখা হবে।
এ বিষয়ে অভিভাবকসহ সুশিল সমাজের ব্যক্তিবর্গ জানান, গুটি কয়েক শিক্ষক এর জন্য প্রতিষ্ঠানটি ধ্বংস হতে চলেছে, শিক্ষকরা যদি অর্থের বিনিময়ে এমন জগন্য কাজ করে, তবে শিক্ষকদের প্রতি ছাত্র/ছাত্রীদের মনোভাব কি হবে ৷ আর এই জন্য বিভিন্ন সময়ে শিক্ষকরা লাঞ্চিত হচ্ছে,অপমানিত হচ্ছে৷ এর সুষ্ট বিচারের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি ৷

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন