এ বি সিদ্দিক দেবহাটা (সাতক্ষীরা) :-
দেবহাটা উপজেলার পল্লীতে সাধারন মানুষের চলাচলের গ্রাম্য রাস্তায় সরকারি খাস জমির গাছ কেটে বাথরুমের হাউজ নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে গ্রামবাসী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দিলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উভয়পক্ষের শুনানী করে ওই রাস্তা থেকে হাউজটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার নির্দেশনা দিলেও অভিযুক্ত ব্যক্তি আজও সে নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেননি। যার কারণে ঐ এলাকার সাধারন মানুষের চলাচলের দারুন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। জানা গেছে, দেবহাটা উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের গাজীরহাট গরানবাড়িয়া গ্রামের আবদুল ওহাব সরদারের ছেলে রফিকুল ইসলাম গত কয়েকদিন আগে রাস্তার উপরে সরকারী খাস জমিতে থাকা কয়েকটি গাছ কেটে সাধারণ মানুষের চলাচলের রাস্তার উপরে বাথরুমের হাউজ তৈরী করতে থাকেন। এ বিষয়ে স্থানীয়রা বাধা দিলে রফিকুল রাস্তার জায়গা তার নিজের দাবী করে জোরপূর্বক হাউজ তৈরী করেন। পরে এলাকাবাসী এ বিষয়ে দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উভয় পক্ষতে তলব করে শুনানী করেন। শুনানীন্তে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রফিকুলকে বাথরুমের হাউজটি অন্যত্র সরিয়ে নিতে বলেন যাতে সাধারন মানুষ স্বাভাবিক চলাচল করতে পারে। কিন্তু রফিকুল আজও নে নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেননি। এরাকাবাসী জানান, রফিকুল যে সরকারী গাছগুলো কেটে নিয়েছেন তার মূল্য আনুমানিক ১২০০০/হাজার টাকা। এ বিষয়ে রফিকুল ইসলাম বলেন, এই সারিতে ১টি মেহগনি, ১টি আম ও ১টি শিশু গাছ ছিল। আর গাছগুলো তার বাড়ির সামনে হওয়ায় তিনি কেটে নিয়েছেন।

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন