বসন্তপুর নৌবন্দর পুনরায় চালু বিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা বসন্তপুর নৌবন্দর নেতৃবৃন্দের এলাকা পরিদর্শন ও মতবিনয় সভা

কর্তৃক ferozsatkhira
০ মন্তব্য 54 ভিউজ

মোঃ হারুন উর রশিদ
রাজা প্রতাপাদিত্য ও বিক্রমাদিত্য এবং বসন্ত রায়ের স্মৃতিধন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের সদস্যদের স্মৃতি বিজড়িত সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুরে নৌ বন্দর পুনরায় চালুর বিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের এলাকা পরিদর্শন ও মতবিনয়ের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৪ জুলাই বৃহস্পতিবার বেলা ১১ঃ০০ টায় বসন্তপুর রাম জননী ভবন প্রাঙ্গণ বসন্তপুর নৌবন্দর সাব কমিটির আয়োজনে জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের নৌবন্দর এলাকা পরিদর্শন করে ও পরে মতবিনিময় সভায় সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সহ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সাংবাদিক স্থানীয় গণমানব ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। বসন্তপুর নৌবন্দর সাব কমিটির আবহাওয়ায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক এজাজ আহমেদ স্বপন এর সভাপতিত্বে ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও তারালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হোসেন ছোটর সঞ্চালনায় মত বিনিময়ের সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য এ কে ফজলুল হক, প্রধান বক্তা ছিলেন সাতক্ষীরা ৪ আসনের সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার, বিশেষ অথিতির বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মুজিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক ফিরোজ কামাল শুভ্র, যুগ্ন সম্পাদক আ হ ম তারেক উদ্দিন , শিক্ষা ও মানব সম্পদ উন্নয়ন বিষয় সম্পাদক সেঁজুতি পারভীন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আখতার হোসেন, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাস্টার নরিম আলী মুন্সী, শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আতাউল হক দোলন, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী, কালিগঞ্জ রোকেয়া মুনসুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ও ভরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাফরুল আলম বাবু, মথুরেশপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাকিম, কালিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক সুকুমার দাশ বাচ্চু, বসন্তপুরের স্থানীয় যুবক সাকিব, প্রমূখ। মতবিনিময় সভায় এ সময় অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কালীগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ হালিমুর রহমান, জেলা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশিদ, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মোজাহার হোসেন কান্টু, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার শেখ মেহেদী হাসান সুমন, যুগ্ন সম্পাদক সজল মুখার্জি, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাবিব ফেরদৌস শিমুল, শ্যামনগর প্রেস ক্লাবের সভাপতি জিএম আকবর কবির, কালিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি শেখ সাইফুল বারী সফু, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কালীগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি শেখ আনোয়ার হোসেন, দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোবিন্দ মন্ডল, প্রস্তাবিত কমিটির প্রচার সম্পাদক উপজেলা যাত্রা ফেডারেশনের সভাপতি কাজী আব্দুর রহমান, সহ উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, ১২টি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মতবিনয় সভায় বক্তারা বলেন সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুর নৌবন্দর টি একটি পুরাতন নৌবন্দর। এই বন্দরটি তিনটি নদী ইছামতি, কাকশিয়াল, ও কালিন্দী নদীর ত্রি মোহনায় অবস্থিত। বাংলাদেশের কালীগঞ্জের বসন্তপুর সীমান্ত নদী ও ভারতের হিঙ্গলগঞ্জ দিয়ে একসময়ে নৌ বন্দর চালু ছিল।১৯ ৬৫ সালের দিকে সেটি বন্ধ হয়ে যায়। বসন্তপুর নৌ বন্দর এলাকা স্বাধীনতার মহান স্থপতি এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের সদস্যদের স্মৃতি বিজড়িত একটি স্থান। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামাল, জাতির পিতার ভ্রাতা শেখ আবু নাসের, ও তাদের পরিবারের সদস্যরা অনেকেই মুক্তিযুদ্ধের সময় এই এলাকা দিয়ে ভারতে গমনাগমন করেন এবং কালীগঞ্জের পানি উন্নয়ন বোর্ড এর রেস্টহাউসে অবস্থান করেছিলেন। নৌবন্দরটি পুনরায় চালু করার বিষয়ে তৎকালীন কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ব্যবসার পথ সুগম হবে। নৌপথে আমদানি রপ্তানি পরিবহন খরচ কম হওয়ায় ব্যবসায়ীরা নৌবন্দরটি ব্যবহার করবেন। এটি পুনরায় চালু হলে সাতক্ষীরা জেলার বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে এবং অত্র এলাকার উন্নয়ন হবে। পদ্মা সেতুর সুফল পাওয়া আমাদের জন্য সহজ হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভীষণ ২০৪১ রুপ প্রকল্প বাস্তবায়নে এবং উন্নয়নের মহাসড়কে আমরা যুক্ত থাকতে পারবো। জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেন বসন্তপুর নৌবন্দর চালু বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সকলের আপ্রাণ চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সম্প্রতি নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বি আই ডব্লিউ টি একটি সমীক্ষা দল এলাকা সার্ভে করে গিয়েছে। বসন্তপুরে বর্তমান কাস্টম অফিস ভবন চলমান রয়েছে, বসন্তপুর পোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে, এছাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস বিজেবি ক্যাম্প, স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ি, কাস্টম ও শুল্ক বিভাগের জায়গা নির্ধারিত রয়েছে। নৌবন্দরটি পুনরায় চালুর বিষয়ে প্রস্তাবনায় আগত সমীক্ষা টিম, সম্ভবত যাচাই উল্লেখ করেছেন সন্তোষজনক। বর্তমান বসন্তপুরে রাজা প্রতাপাদিত বিক্

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন