মুকুন্দপুর ঘেরে বিষদিয়ে মৎস্য নিধনের অভিযোগে জনশুমারি ও গৃহগণনা তালিকাকারী এক যুবক আটক

কর্তৃক ferozsatkhira
০ মন্তব্য 67 ভিউজ

নিজস্ব প্রতিনিধি:
ঘেরে বিষ দিয়ে মৎস্য নিধনের অভিযোগে সাতক্ষীরার মুকুন্দপুরের জনশুমারি ও গৃহগণনা তালিকাকারী এক যুবককে আটক করেছে সদর থানা পুলিশ।

আটককৃত যুবক সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মুকুন্দপুর এলাকার মহিদ হোসেনের ছেলে মোঃ আল-আমিন হোসেন (৩০)।

সদর উপজেলার বল্লির মুকুন্দপুর এলাকার মেহেদী হাসান বাবু’র মৎস্য ঘেরে বিষ দেওয়ার অভিযোগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে তাকে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে সদর থানা পুলিশ।

এঘটনায় বল্লি ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে মেহেদী হাসান বাবু’র মৎস্য ঘেরের মাছ মরে গেলে সে সাতক্ষীরা সদর থানায় অভিযোগ করেন। ওই দিন গভীর রাতে পুলিশ আল-আমীনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আল-আমীন আমার দলীয় কর্মী। সে ভোটের সময় আমার পক্ষে কাজ করায় আমার বিপক্ষ দলের সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ গোলাম কিবরিয়া চক্রান্ত করে তার ভাইপো মেহেদী হাসান বাবুকে দিয়ে এই মিথ্যা মামলা করেছে।

বল্লি ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আশরাফ সিদ্দিক বলেন, ঘেরে মাছ কিভাবে মরে গেছে জানিনা। তবে তদন্ত ছাড়াই পুলিশ আল-আমীন কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে মামলা দিয়েছে।

বল্লি ইউনিয়নের অপর বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান জানান,মিথ্যা মামলায় আটক আল-আমীন নিরীহ। সে বল্লী ইউনিয়নে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ কাজ জনশুমারি ও গৃহগণনার সক্রিয় তালিকাকারী। তার নামে এর আগে কোনো অভিযোগ পায়নি।

এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বিশ্বজিত অধিকারী বলেন, বল্লির মুকুন্দপুর এলাকায় মেহেদী হাসান বাবু’র ঘেরে বিষদিয়ে মৎস্য নিধনের ঘটনায় তার দেওয়ায় মামলায় আল-আমীন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করাহয়েছে। ওই ঘেরে বিষ দেওয়ার সময় বাদী আটক আল-আমীন সহ আরো ৪-৫ জনকে দেখতে পায়। বাদীর দেওয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্ত করে আইন অনুযায়ী মামলা রেকর্ড করে ঘটনার সাথে জড়িত থাকায় ওই যুবককে আটক করাহয়েছে।

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন